দশটি দ্বিপদী

(১) “স্থানু”

সে জানে না সময়, জানে না জোয়ার ভাঁটা

দেখেনা চেয়ে সে ঘড়ির অস্থির কাঁটা  ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(২)  “অন্তর্ঘাত”

হয়ে চলে গোপনে গোপনে রক্তে নিবিষ্ট অন্তর্ঘাত

হিম স্রোত খুঁড়ে যায় দুস্তর পাথর ছড়ানো খাত ।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৩)  “ঘড়ি” 

ক্ষুধার্ত ঘড়ি তার দুই কাঁটা দিয়ে যেন চাউমিন —

গোগ্রাসে গিলে খায় সময় ; তবুও সময় অন্তহীন  ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *
(৪) “স্বপ্নের ঘুড়ি”

ঘুমের মধ্যে মিথ্যে হাঁটা ,

ঘুম ভেঙ্গে গেলে স্বপ্নের ঘুড়ি ভোঁ কাট্টা  ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৫) “অস্তিত্ব”

ছড়িয়ে পড়ে অস্তিত্বের টুকরো গুলো

সেঁকে রোদে, ভেজে জলে, মাখে ধুলো…

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৬) “সংজ্ঞাহীন”
কেউ যাবে উত্তর, কেউ বা দক্ষিণ
হয়তো একদিন হবে সকলই সংজ্ঞাহীন ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৭) “ভালোবাসা বলে “

ভালোবাসা ভালোবাসা বলে চেঁচাও কেন অতো
বোঝাতে চাও কি, হৃদয়ে হয়েছে ক্ষত  ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৮) শহরে সন্ন্যাসী”

এই শহরে বাস করে এক উন্মাদ সন্ন্যাসী
কেউ জানে না কখন কাঁদে , কখন যে তার হাসি ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(৯)     পলাশ
আমি তো বিদীর্ণ হয়ে দেখিয়েছি আমার সব –
হে আকাশ, বিকীর্ণ করো তোমার অনুভব ।।

* * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * * *

(১০) “বোঝায়”


একটা জীবন কেটেই গেলো বোঝায় এবং ভুল বোঝায়
ধাঁধিয়ে যাচ্ছে দিক নিশানা উলটো, কঠিন এবং সোজায় ।।

Related posts

Leave a Comment