মুখপুড়ি

ও রতনদা দাওনা কোন একটা কাজ
দুবেলা মুখপুড়ির মুখে ভাত,
আর এক টুকরো কাপড় পেলেই ঢাকবো মোর লাজ.
সেথায় তোমার কত পরিচিতি,কতজনই তো যায় ;
একটু চেষ্টা করেই দেখো যদি আমার কিছু একটা হয়.
শুনেছি এই শহরেই সবার ভাত জোটে,
মুখপুড়ির মুখেতে আগুন, তবু যদি হাসি ফোটে.
লোকটা তো আর এলোনা, সপ্ন দিয়েছিলো,
পেটে যখন মুখপুড়ি, তখনই বিদেই হলো.
মরণ, তখন যদি জানতাম নিতাম নাকি পেটে?
এমন করে বললো আমায়, যেন জীবন যাবে কেটে.
রবিবার করে আসত মিনসে ফুলএর মালা হাতে,
কতবার পড়িয়েছে গলায়, ছিঁড়েছে শেষ রাতে.
ইঁট ভাঁটার ওই মজুমদার কত্ত সেধেছিল,
আমি বলেছিলাম গতর আছে, খাটিয়ে খাবো,
তোর বিছানায় কেন যাব ?
কিন্তু হলো তো সেই, লাগলো কালির পোঁচ,
পোড়ামুখি জন্ম নিল, বাপের নেইকো খোঁজ.
বুকের দুধে আর কুলাবে কি, সেও গিয়েছে শুকিয়ে,
একবেলা ফ্যান খাই, আরেক বেলা ভাত নুন দিয়ে.
রতন এবার কাজ এনেছে বাবুর বাড়ি যাব,
দুই বেলা পেট পুরে খাওয়া, সঙ্গে কুড়িটি টাকা পাব.
বাবুর বাড়ি একটু খানি ঘুম এসেছিল বটে,
বাবুর ছেলে সেই সুযোগে আমার শরীর চাটে.
ঘেন্নায় বমি পেল, ছুটলাম রাস্তা ধরে,
বুকের মাঝে মুখপুড়ি, কেঁদে উঠল ডুকরে.
সান্তনার হাত মাথায় রেখেই বললাম
ওরে যায়নিকো এখনো শরীর খানা, সম্মান নিয়েই চললাম.
দু দিন শুধুই জল খেয়েছি পথের ধারে কলে,
মুখপুড়ির খাবারে টান, দুধ আর কই মেলে.
রাঙ্গা মাসী আজ দুপুরে নিয়ে এলো সাথে,
অনেক আরও আমার মতই এখানেতে থাকে.
নাম গুলো এদের নাকি মা বাবার দেওয়া নয়,
কাজ করলেই পয়সা পাবে এই তো পরিচয়.
আমিও পেলুম কাদম্বরী,
খেতে পেল দুটি মুখপুড়ি.
এখন রোজ সকালে ঘুমিয়ে উঠে মুখের কালি তুলি,
শরীর না হয় বেঁচে দিয়েছি, মেয়েকে কেমনে ভুলি?
সন্ধায় পর রঙ্গরসে সব চট্চটে হয় যখন,
অবাক চোখে তাকায় মুখপুড়ি, কিছু বোঝে কি তখন?
Swarup Biswas

Swarup Biswas

ছোট্ট বেলায় সব্প্ন দেখে অবসর সময় কাটাতাম l কুঁড়ে মানুষ এর লক্ষণ তখন থেকেই প্রস্ফুটিত হয় l পরে ক্রমশ তা প্রকাশ পায় পরিচিত মহলে l আমার মধ্যে কাব্য চেতনা কেন নেই এই অভিযোগ আমার বহুদিনের l আকাশ কে আকাশ দেখি , জল ক জল দেখি , লাল কে লাল , নীল কে নীল l কোন রমণীর কেশের সথে আকাশের মেঘের তুলনায় যাওয়ার বা নদীর জলের মধ্যে প্রিয়তমার মুখ দেখার ক্ষমতা যে আমার নেই সে টের পেতে খুব বেশী সময় লাগেনি এ বলা বাহুল্য l কি লিখব ভাবতে ভাবতেই বেশীরভাগ চিন্তাভাবনা হারিয়ে যায় সময়ের স্রোতে , কিন্তু ভাবনা গুলো হয়ত কখন ফিরে ফিরে আসেই কোন এক অলস দুপুরে l দু চার লাইন লিখেও ফেলি মনের তাড়নায়, সে লেখারা হয়ত পরে থাকে কোন এক কোণে অবহেলায় l জয়তী দির এক প্রচেষ্টা, সাহিত্য এর প্রকারভেদ না রেখে একটা মঞ্চ তৈরী করার যেখানে আমদের মত অবহেলিত প্রাণীরাও ঠাঁই পাবে l শুনেই মনটা খুশি তে গদগদ , কিন্তু সঙ্গে লাগবে নিজের সম্পর্কে দু চার লাইন, উফফ কি জ্বালা বলুন তো মাইরিl বলি মশাই কি বাউন্ডুলে ছেলে দেখেছেন ? যদি দেখে থাকেন তাহলে আমায় চিনতে আপনার কোন অসুবিধে হবেনা l কোন উদ্দেশ্য নেই , কোন গন্তব্য নেই , হেঁটে চলেছি শালবীথির পথে l দূরে পলাশ বনে আগুন লেগেছে, আর আমার মন চলেছে রাঙ্গামাটির পথে , এঁকে বেঁকে l

More Posts

Related posts

Leave a Comment