অসময়ের বৃষ্টি

অসময়ের বৃষ্টি

খুব অসময়ের বৃষ্টি …. সকাল থেকে ছিপছিপ করে পরেই চলেছে ….থামবার নামটুকু নেই …. টিয়া গুগল এ একবার ওয়েদার ফোরকাস্টিং টা চেক করলো … ওরে বাবা …. এত বলছে নেক্সট চার দিন এমন ই চলবে ….এই নভেম্বর এর মাঝে এমন বৃষ্টি ভালো লাগে !হাল্কা ঠান্ডা ও পড়েছে ….টিয়ার মন টা খারাপ হয়ে গেল …. বেশ একটা টানা ছুটি পেয়েছিল সে … অর্ক ও … ভাবছিল এই সুযোগে একটু যদি কাছে পিঠে ঘুরে আসা যেত … কিন্তু এমন ওয়েদার থাকলে গিয়ে লাভ নেই ….. অর্ক আজ এখনো ফেরেনি অফিস থেকে ……

Read More

হানিমুন

হানিমুন

আজও ওরা পাহাড়ের বেশ কিছু সুন্দর জায়গা দেখে সন্ধেবেলা হোটেলে ফিরলো। সেই সৌম্যদর্শন বৃদ্ধ লবিতে বসেছিলেন,বললেন“এই যে কেমন ঘুরলে তোমরা ? এই দক্ষিণের ট্রাইবাল ভিলেজটা তোমরা একবার দেখতে যেতে পার – – -” ঘরে ফিরে রীমা বললো “দেখো ঐ বুড়োকে এড়িয়ে চল, নইলে দেখবে রোজ জ্বালাবে। ” সুমন ওকে কাছে টেনে নিয়ে বলল, ”ছাড়োতো ওসব কথা , এবার একটু – – -” তৃতীয় দিন ওরা অনিচ্ছা সত্তেও সেই বৃদ্ধের রুমে গেল। ৫০তম বিবাহবার্ষিকী , বারবার বলেছিলেন। সারাঘরে ৫০টা মোমবাতি জ্বলছে, প্রচুর ফুলে সাজানো , একদিকে ধুপবাতি জ্বলছে। একটা গরদের শাড়ী…

Read More

বকশিশ

বকশিশ

ব্যাঙ্কে একটা চেক জমা দিয়ে বেরুনোর সময় নন্দলালবাবুর নজরে এল, একটা স্লিপ হাতে এক বয়স্কা ভদ্রমহিলা একে ওকে কী যেন অনুরোধ করছেন। সকলেই তাকে এড়িয়ে চলে যাচ্ছে। নন্দলালবাবু ওনাকে জিজ্ঞাসা করলেন, কী ব্যাপার? -এই দেখ না বাবা, আমি কিছু টাকা তুলব।, কিন্তু, কাউকে দিয়ে লেখাতে পারছি না। নন্দলালবাবু হাত ঘড়িটা দেখে নিয়ে বললেন, ঠিক আছে আসুন আমার সঙ্গে, আমি না হয় লিখে দিচ্ছি। ফাঁকা একটা টেবিলে বসে নন্দলালবাবু পাশবই আর স্লিপটা ওনার কাছ থেকে নিয়ে বললেন, কত টাকা তুলবেন? -সাত হাজার টাকা, বাবা। স্লিপটা পূরণ করে ভদ্রমহিলাকে বললেন, নিন, এখানে…

Read More

অজ্ঞাত

অজ্ঞাত

বৃষ্টিভেজা ট্রামলাইন জানে আমার স্মৃতিমেদুরতা দেওয়ালের ফাটল জানে আমার নীরবতা পার্কের বেঞ্চ জানে আমার কথকতা গম্ভীর কার্নিশ জানে আমার ভাঙাগড়া মাতাল হাওয়া জানে আমার দীর্ঘশ্বাস রাতের তারা জানে আমার উন্মাদনা খোদাই জানে বিচিত্র খোদকারি |   Manjish RayI am a student I try to express myself through my pen.More Posts

Read More

চিঠি

চিঠি

গভীর রাতে গোটা কলকাতা নিঝুম  ঘুমে গড়িয়ে গেল।জোড়াসাঁকোর সদরের গ্যাসের আলো গুলিও ঘুমোল বোধ হয়।  আমি চুপিচুপি উঠে তখন তোমার  চিঠি পড়েছি।  বেলি ঘুমোচ্ছে ধরো আর শিয়রের জানলা দিয়ে একটু খানি চাঁদ আলো অনেক  খানি দখিন বাতাস  নিয়ে ঢুকে পড়লো ঘরে—ম্রিয়মাণ সেজের বাতি একটু কেঁপে নিভে গেল কেমন,আমি তখন স্পর্শ  দিয়ে তোমার  লেখা পড়ি। একটু একটু করে ছুঁয়ে ফেলি তোমার  মান অভিমান  আটপৌরে সংসার  ভাবনা —মনে হয় পদ্মা পার থেকে বেলির বাবা এসে আমাদের ঠিক পাশটিতে বসেছেন। তোমার  শরীর গন্ধ,আর দৃঢ়তর কাঁধ থেকে নেমে আসা কোমল বাহু আমাকে ছুঁয়ে দিল…

Read More

লাল তিতির

লাল তিতির

তিতলি আসতে আসতে মায়ের হাত টা সরিয়ে পা টিপে টিপে এসে দরজার কোণে বালতিটা উপুর করে রাখলো    ……….. তারপর ওটার ওপর উঠে দু’পা উঁচু করে সদর দরজার ছিটকিনিটা খুলেই দে ছুট….. আজ আসবে বলেছে লাল তিতির …… খুব দেরি হয়ে গেলো  … “তিতির কি অপেক্ষা করছে ওর জন্য !  নাকি ফিরে চলেই গেলো ! চলে যাবে !” বুক টা মোচর দিয়ে উঠলো তিতলি র ….সত্যি যদি লাল তিতির চলেযায় !! তিতির নাম টা তিতলি ই দিয়েছে ওকে ….তিতলি র ভালো লাগে ওকে এইনাম এ ডাকতে …. এটা একান্তই ওর দেওয়া নাম ….ওর সব চেয়ে কাছের বন্ধুকে… কেউ বিশ্বাস ই করতে চায়না লাল তিতির ওর সাথে কথা বলে …লাল তিতির আর তিতলি খুব ভালো বন্ধু ….. মা তো রোজ বকে ওকে , তিতলি কেন যে মা কে বোঝাতেই পারে না …!! রোজ নাকি ঘুমোতেই হবে …. বোঝে না লাল তিতির ওরজন্যই শুধু অপেক্ষা করে বসে থাকে বাগানের শেষ প্রান্তে …. পা চালিয়ে ছোটে তিতলি…..বাগানের ঘাসে পা রাখতেই রঙ্গন ফুলের গাছ টা তে তিতলি দেখতে পেল লালতিতির কে … ফুলের সাথে মিশে লুকিয়ে ছিলো ….. তিতলি কাছে যেতেই লালতিতির উড়ে এসে বসলো ওর হাতের    আঙুলে ….. রোজের মতো তিতলি হাত টা আসতে আসতে চোখের সামনে নিয়ে আসলো  … আর বললো …. “ভালো আছো লাল তিতির ? “তিতির ও রোজের মতো ফরফর করে উড়ে একবার ওকে চক্কর কেটেআবার এসে বসলো আঙুলে …..এই ভাবেই এককথা দুকথা …….জমে ওঠে ৮ বছরের তিতলি র সাথে লাল ফড়িং এর বন্ধুত্ব …..আর ছেলেবেলার গান ……সাঁঝ ঘনিয়ে আসে….. “তিতলি …. সোনা মা আমার …. ওঠো ওঠো ….. সন্ধ্যা লেগে গেছে …. চলো পড়তে বসতে হবে …. আজ অনেক হোমওয়ার্ক আছে … আর গানের রেওয়াজ টাও আজ করতে হবে …. আঁকার দিদির হোমওয়ার্ক ফিনিশ করেছ তো ! এই উইক এ আঁকার পরীক্ষা আছে কিন্তু ….চলো চলো …. উঠে পড় ….”মায়ের একনাগারে কথাগুলো যেন রেলগাড়ির মত  ঝমাঝম করে এলো আবার মিলিয়ে গেল ……সঙ্গে নিয়ে গেলো লাল তিতির কেও ….. তিতলি র চোখে ঘুম….আর লাল তিতিরের স্বপ্ন … হাতে পেনসিল আর হারানো শৈশবে বেড়ে ওঠা কঠোর বাস্তব …..   Suparna Pradhanআমি সুপর্ণা প্রধান । পশ্চিমবঙ্গের এক মফঃস্বলে (কৃষ্ণনগর ) ১৯৭৮ সালের ৯ ই মে আমার জন্ম । ডিপ্লোমা ইন্জিনীয়ারীং করলেও চাকরীতে মন ছিলো না কখনই । পরিবার…

Read More

ভালবাসার অবশেষে

ভালবাসার অবশেষে

মনের দোলাচল ভালোবাসার আকাশে আবেগের ঝর্না নিঃশব্দে ঝরে চলে, নয়ন দুয়ারে ভালবাসার বালুচরে, একাকীত্বের চোরাবালি স্বপ্ন ভাঙ্গার জোয়ারে জীবন আজ সাদাকালো,শূন্য, শুকানো বাগানের মালি পশ্চিম আকাশে জীবন সূর্য্যির অস্তাচলের গোধূলি তবুও আজও তুমি ওই আকাশের ধ্রুবতারা আমার জীবন-সূর্য্যি অস্ত যাক বা নাই বা যাক তোমার ভালোবাসার চাঁদ সেই আকাশে চির বর্তমান চিরনিদ্রায় যাবে জীবন যেদিন, একটাই ভাবনার অবশেষ স্বপ্নে শুধু তুমি এসো সেদিন হয়তো কখনও বৃষ্টি যদি আসে ভেবে নিও ওই পবিত্র ধারায় আছি আমি কখনও শান্ত সকালের কোমল রৌদ্র তোমায় কষ্ট দেয় অনুভব করবে ওই সোনালী কিরনে আমার উপস্থিতি…

Read More

অনু-কবিতা

অনু-কবিতা

বিন্দু বিন্দু তে জমেছিল মেঘ, আগুনে ঝলসেছিল চোখ, তোরর তাপে যদি পুড়তে দিস আবার.. তবে আমার পুনর্জন্ম হোক….   এক গাছি সোনা।। – লুকোনো কোনো গ্রন্থি থেকে,কান্না আসে।। গন্ধ ছড়ায় এই আকাশে, যেই আকাশে ACID ভাসে, রুপালী মেঘ ভাসে না।। নামটা মুখে সোনাগাছি আসে, এক গাছি সোনা আসে না।। ——————————— Abhijit DeyMyself Abhijit Dey, from kolkata. I work with Trans technologies Thermal Pvt. Ltd. as a Jr. Engineer. Writing is a way of expressing myself, for me. I love to be alone.More Posts

Read More

ভয়

ভয়

সবাই আপন সবাই পর ঘরের ভেতর পৃথক ঘর স্বপ্নময়! কাঠের ভেতর লুকিয়ে ঘুণ ভেতর থেকেই করবে খুন হবেই ক্ষয়! ভাঙলে পাথর নতুন পথ থাকলে থাকুক ভিন্ন মত তর্ক নয়। সাপের ফণায় কার্বলিক ছিটিয়ে দিলেই নও প্রেমিক অবক্ষয়! কোষের ভাজেই জটিল ফাঁদ হড়কে গেলেই মৃত্যু খাদ শুধুই ভয়। Saptaswa Bhowmikউল্লেখ করার মতো কোনো লেখক পরিচিতি আমার নেই। নিজস্ব উদ্যোগে ‘অনিকেত তথাগত’, ‘প্রেমে ও পরাগে’ এবং ‘উদাসীন অন্ধকার’ নামে তিনটি কাব্য-গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। এক সময় কিছু দৈনিক ও ক্ষুদ্র পত্রিকায় কিছু কবিতা, ছড়া, প্রবন্ধ ও অণু-গল্প প্রকাশিত হত। কিছুদিন হল সে সব…

Read More

ইনগ্রিড

ইনগ্রিড

সোমদত্তার ভার্না শেষ বাঁক টা পেরোতেই, এক ঝাক ভুট্টা হলুদ বদ্রী আকাশ কাঁপিয়ে উড়ে গেলো। অদ্ভূত শান্ত চারিদিক, কে বলবে সিলারি গাঁও যাওয়ার পথে দিন দুয়েক আগেও কি বেগ পেতে হয়েছে তাকে। ছিমছাম ‘ থার্স্টি ‘ তে ঢুকে, উরুন কে টুকটাক ব্যাবসায়ীক হালচাল জিজ্ঞেস করে, সোজা নিজের কেবিন কাম প্রাইভেট চেম্বারে চলে গেলো সে। শেষ চারদিন তার অমানুষিক পরিশ্রম গেলো, তবে শ্রান্তিতেও স্বস্তি পাচ্ছে সে। আর তার অন্ধকার অতীত পিছু ধাওয়া করবে না, আর তাকে কালিমালিপ্ত হতে হবে না। শুধু মাঝেমধ্যে একজোড়া করুণ চোখ ভেসে উঠছে মনে। সত্যি, শয়তান ও…

Read More
Page 1 of 2
1 2