শিকড়

শিকড়

মরতে গিয়েও মরতে পারিনি। আমি মরে গেলে মৌসুমী আর মেয়েটা ভেসে যাবে। ওদের মুখে হাসি ফোটানোর সামর্থ্য নেই আমার, তাই বলে নিজে পালিয়ে গিয়ে ওদের অন্ধকার ভবিষ্যতের দিকে ছুঁড়ে ফেলি কী করে…আমি তথাগত সেন। সামান্য এক সেলসম্যান। চারদিক থেকে দেনার দায়ে ডুবে আছি। কাল হয়তো চাকরিটাও থাকবে না। ঘরে ফিরে মৌসুমীকে কি বলব জানিনা। ও বরাবরই চুপচাপ। কোন অভিযোগ নেই ওর। কিন্তু আমাদের মেয়েটার ভবিষ্যৎ চিন্তায় ওকে আজকাল খুব রুগ্ন দেখায়। দিলীপ দার কথামতো সেদিন এক জ্যোতিষীর কাছেও গেছিলাম। সে যা সব পাথর ধারণ করতে বলল, তা কেনার ক্ষমতাও আমার…

Read More

ত্রিতাল – অথবাতিনতালকানারগল্প

ত্রিতাল – অথবাতিনতালকানারগল্প

।।১।। এই যে এত বছর কর্পোরেট জগতে চরে খাচ্ছি, একটা জিনিস কিন্তু শুরু থেকেই দেখেছি। পুরুষ সহকর্মীরা মহিলাদের সাথে মেলামেশায় রীতিমত সতর্ক থাকেন। ব্যতিক্রম নেই বলছি না, কথাবার্তায় অতি ঘনিষ্ঠ ভাব দেখানো, ছুতোনাতায় গায়ে ছুঁয়ে যাওয়া, বাসে পাশে বসলে গোপালের প্রসাদ দেবার নামে বুকে কনুই ঠেকানো – এসব একদম যে হয়নি তা বলব না কিন্তু সেগুলো বিচ্ছিন্ন ব্যতিক্রমই, আমি একেবারে জুনিয়র থাকতে, এবং এইচ আর কে জানানোর পর এসব বদ লোক বেশিদিন কোম্পানিতে টেঁকেনি। একটু পোক্ত হবার পর, এসব নিয়ে আর একেবারেই মাথা ঘামাতে হয়নি। হয়তো আমি যখন থেকে কাজ…

Read More

অপ্রেমপত্র (দ্বিতীয় অংশ)

অপ্রেমপত্র (দ্বিতীয় অংশ)

জীবনের মরুভূমিতে অনেকটা পথ দিকভ্রান্ত তৃষ্ণার্ত পথিকের মত ঘুরে হঠাৎ জলের সন্ধান পেয়েছিলাম যেদিন সেদিন ঠিক ভুল বিচার না করেই আঁজলা ভরে আকণ্ঠ জল পান করেছিলাম পিপাসা মেটাতে ।আজ ভেবে পাই না,মৃত্যুমুখী তৃষ্ণা নিবারক সেই জলেই বিষ ছিল,নাকি সেই অমৃত ধারা আমার বিষাক্ত সংস্পর্শে এসে তীব্র বিষে পরিণত হয়েছে ।একবার ভালোবাসার সাথে দিন যাপনের অভ্যাস হয়ে গেলে সেই ভালোবাসাকে ভুলে থাকা বোধহয় অসম্ভব ।তাই বারবার, বরাবর আগলে রাখতেই চেয়েছি ।চাওয়া পাওয়া, অভিমান, অভিযোগ, দাবি, খারাপ লাগা – সমস্ত বোধকে মহীরুহ অস্তিত্ব থেকে ছাঁটাই করে বনসাই – এর আকার দিয়েছি—-শুধু সম্পর্কটা…

Read More

নেশা

নেশা

শাওয়ারের জলে গা ভেজাতে ভেজাতে মনটা হঠাৎ চিন্তাটা আসে, মনটা ছ্যাঁত করে ওঠে ব্রতীনের; এমনটা কি হওয়া সম্ভব? মনে মনে ঠিক করে, আজ একবার পরীক্ষা করে দেখবে….. নিজের ভেতর অসম্ভব এক আত্মগ্লানি অনুভব করল, জলের মধ্যে থেকেও সেই অনুভুতি ভেসে গেল না….ব্রতীন, ডালহৌসির সরকারি অফিসের এক পদস্থ অফিসার; বাবা মারা যাবার পর তার চাকরিটাই পেয়েছে। কম বয়সে সংসারের ভার নেবার ফলে, বিয়েটা করা হয় নি। ছোট ভাই “অহি” কে সে নিজের ছেলের মতন মানুষ করেছে, সে নিজে যা যা করতে পারে নি…. সব ভাইএর জন্য করেছে; অহিকে কখনও কোনও অভাব…

Read More

শেষ দেখা

শেষ দেখা

সবাই বলে 13 তারিখ তা নাকি অশুভ , কিন্তু আমার জীবনে এই 13তারিখ তা খুুুব মধুর। 2017 সালের 13ই আগস্ট হঠাৎ একটা মিষ্টি দেখতে মেয়ের বন্ধুুত্বর প্রস্তাবনা  ফেসবুক পাতায়।কে ঠিক চিনতে পারছিলাম না । পরে জানলাম ভালো নাম দেবশ্রী। আমি এমন এক পরিবার থেকে মানুষ হয়েছি কিনা ভীষণ সংরক্ষিত সবার সাথে মিশতে ভয় হতো বিশেষ করে মেয়েদের সাথে। তাই আমার বন্ধু মহলে প্রায় সবার কাছে হাসস্পদ হতে হতে হয়েছিল। তাই আমার বন্ধু বলতে গান , আকা, বইপড়া এদের নিয়েই চলে গেছে এতগুলো বছর। তাই ফেসবুক  থেকে এই মেয়েটি যখন জানলো…

Read More

সফটি

সফটি

সকাল থেকে সফটি ব্যস্ত, বাড়িতে অনেক কাজ আর মহিলা বলতে ও একা ।স্কুলেও যাচ্ছে না কদিন ধরে। পুরহিত মশাই আসার আগে সব জোগার জাতি করে ফেলতে হবে।আজ মানির শ্রাদ্ধ। মানি ওর ঠাকুমা।জ্ঞান হবার পর থেকেই সফটি দেখে আসছে মানিই ওর সব। খাওয়ানো ,স্নান করানো, ঘুম পারানো, স্কুলের বাসে তুলে দেওয়া সব ,নাচের শিক্ষিকা খোঁজা ,সব কিছুতে মানি ।কত অত্যাচার না করেছে মানির ওপর, সব মুখ বুজে সহ্য করত মানি। বাবা মার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায় যখন , তখন সফটির মাত্র ২বছর বয়স , এক আয়া মাসি ছিল আর ভরসা ছিল মানি।…

Read More

ঠান্ডা-গরম

ঠান্ডা-গরম

আপনাদের কার কার গরম খাওয়ার বাতিক আছে শুনি? না, ঠান্ডা করকরে ভাত, কি নেতিয়ে চিমসে যাওয়া টোস্ট খেতে মোটেই বলছি নে, ও আবার কারো ভাল্লাগে না কি? কিন্তু এমন অনেকেই আছেন না, যাঁদের খাদ্য বা পানীয়, বাঞ্ছিত উষ্ণতার থেকে সামান্য, অতি সামান্য, রতি মাত্র কমে গেলেই মুখ ভার, কান কটকট, পেটে ডিফার‍্যানশ্যাল ক্যালকুলাস ইত্যাদি হয়?এঁরা মহান লোক মশাই।এঁরা অক্লেশে আগুন-গরম ফিশফ্রাই তে প্যাকম্যানের মত হাঁ করে কামড় বসান, ফুটন্ত স্যুপ সুড়ুৎ করে গলা দিয়ে গলিয়ে ফেলেন, কড়াই থেকে সটাং পাতে আসা ফুলকো লুচিকে ফুস্করে দিতে গিয়ে এঁদের চম্পকাঙ্গুলিতে একটুও ফোস্কা…

Read More

স্বীকৃতি

স্বীকৃতি

ফোনটা হাতে নিয়ে কন্ট্যাক্টলিস্টে শুধু একটা নামকে দেখেই সময় কাটে অমিতের। মানে যখন খুব একা লাগে, ও দেখেছে, নামটা দেখলেই ওর বেশ একটা ভাললাগতে শুরু করে। মাঝে মাঝে এরমটাও হয়েছে, নামটা দেখছে…আর ঐ নামটা থেকেই ফোন এসেছে। ফোনটা বেজে যায়…. হ্যাঁ, বেজে যায়, অমিত ফোনটা ধরে না …. চোখের সামনে বাজতে বাজতে ফোনটা থেমে যায়; অমিত বিধাতাকে ধন্যবাদ জানায়; ফোনটা আসে ….মাসে একবার, দুমাসে একবার, তিনমাসে একবার। আসে, বেজে যায়। কিন্তু আসবেই। সে এখনো মনে রাখে তাকে, ভোলে নি। অমিত জানে, ভুলবেও না। ************************************************ সবাই এসে গেছে, ঐ হতচ্ছাড়া গৌরবটার…

Read More

শুভদৃষ্টি

শুভদৃষ্টি

এখনও পাশের বাড়ির থেকে শাঁখ আর উলুর আওয়াজ আসছে ।পিউ-এর বিয়ে হয়ে গেল কিংশুকের সাথে ।কিংশুক নাম করা ডাক্তার ।পিউ যথেষ্ট সুন্দরী ।অরুনাভ বোঝে সব ।তবু আজকের দিনে ভীষণ কষ্ট হচ্ছে ।কোন ছোট্টবেলা থেকে পিউ আর অরুনাভ-এর প্রেম ।সবাই জানতো, ওদের বিয়ে হবেই ।সব কিছু ঠিক থাকলে হয়তো আজ পিউ-এর সাথে কিংশুকের বদলে অরুনাভ-এর বিয়ে হত ।কিন্তু………… অন্ধকার ছাদে একলা বসে আছে অরুনাভ ।ওদের ছাদ আর পিউ-দের ছাদ লাগোয়া ।সেই কোন আমলে কাঠের সেতু তৈরি করেছিল অরুনাভ ছাদে ছাদে ওবাড়ি যাওয়ার জন্য, আজও সেই সেতুটা রয়ে গেছে ।শুধু মাত্র অরুনাভ…

Read More

মৃত্যু

মৃত্যু

বদলবাবু আজও একটা স্কচ হাতে নিয়ে বারান্দায় বসে চিন্তা করেন সেই দিনগুলোর কথা। শিকারের আনন্দ তিনি ভুলতে পারেন না, একটা জন্তু কে মেরে ফেলার আনন্দ যে কি, তা বলে বোঝানো যায় না। জন্তু, মানে যাদের বুদ্ধি কম , যারা কোনো কিছু করার আগে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। ওরা আবেগ সর্বস্য। বদলবাবু কারোর মৃত্যুর জন্য দায়ী নন। তিনি মনে করেন, তিনি কাঊকে হত্যা করেন নি , বরং মৃত্যুর মত একটি অমূল্য উপহার দিয়েছেন মাত্র। জন্তুটা বেঁচে থেকেই বা কি করত ? বদলবাবু মোটেও নিষ্ঠুর নন , তিনি তাঁর সংসার ও একমাত্র…

Read More
Page 1 of 7
1 2 3 7